বিষয়বস্তুতে চলুন

আলাপ:অজিতকুমার চক্রবর্তী

পাতাটির বিষয়বস্তু অন্যান্য ভাষায় নেই।
আলোচনা যোগ করুন
উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে
সাম্প্রতিক মন্তব্য: Md. Mijanur Rahaman Milon কর্তৃক ২ মাস আগে "অজিতকুমার চক্রবর্তী: রবীন্দ্রসাহিত্যের এক অগণিত রত্ন" অনুচ্ছেদে

অজিতকুমার চক্রবর্তী: রবীন্দ্রসাহিত্যের এক অগণিত রত্ন[সম্পাদনা]

অজিতকুমার চক্রবর্তী (১৮৮৬-১৯১৮) ছিলেন একজন বিখ্যাত বাঙালি সাহিত্যিক, সমালোচক, অনুবাদক, শিক্ষক এবং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একনিষ্ঠ অনুসারী। তিনি বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রসাহিত্য-সমালোচনার এক নবজাগরণের সূচনা করেছিলেন।

জীবন ও কর্মজীবন: জন্ম ও শিক্ষা: ফরিদপুরে জন্মগ্রহণকারী অজিতকুমার কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজ থেকে স্নাতক হন। এরপর তিনি শান্তিনিকেতনে যোগদান করেন, যেখানে তিনি শিক্ষকতা ও উচ্চতর শিক্ষা লাভ করেন। শান্তিনিকেতনে অবদান: শান্তিনিকেতনে অজিতকুমার একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্বে পরিণত হন। তিনি "ব্রহ্মচর্যাশ্রম" প্রতিষ্ঠা করেন এবং "বাতায়ন" পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সাহিত্যকর্ম: অজিতকুমারের উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকর্মের মধ্যে রয়েছে "রবীন্দ্রনাথ", "কাব্যপরিক্রমা", "ব্রহ্মবিদ্যালয়", "খ্রীষ্ট" ইত্যাদি। তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাহিত্যকর্ম ইংরেজি ও জার্মান ভাষায় অনুবাদ করেছিলেন।

সমালোচনা: একজন সাহিত্য সমালোচক হিসেবে অজিতকুমার রবীন্দ্রসাহিত্যের একজন গভীর বিশ্লেষক ও ব্যাখ্যাকার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন।

অবদান: রবীন্দ্রসাহিত্য-সমালোচনায় নবজাগরণ: অজিতকুমার বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রসাহিত্য-সমালোচনার এক নবজাগরণের সূচনা করেছিলেন।

রবীন্দ্রনাথের সাহিত্যের বিশ্বায়ন: তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাহিত্যকর্ম অনুবাদ করে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি করতে সাহায্য করেছিলেন। শান্তিনিকেতন ও রবীন্দ্র আন্দোলনের প্রসার: শান্তিনিকেতনে অজিতকুমারের অবদান প্রতিষ্ঠানটির প্রসারে এবং রবীন্দ্র আন্দোলনের উত্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

মৃত্যু: অজিতকুমার মাত্র ৩২ বছর বয়সে ১৯১৮ সালে শান্তিনিকেতনে মারা যান। Md. Mijanur Rahaman Milon (আলাপ) ০৩:৪৩, ২১ এপ্রিল ২০২৪ (ইউটিসি)উত্তর দিন