বিষয়বস্তুতে চলুন

শরৎচন্দ্র পণ্ডিত

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

শরৎচন্দ্র পণ্ডিত (২৭ এপ্রিল ১৮৮১ - ২৭ এপ্রিল ১৯৬৮) ছিলেন বাঙালি কৌতুক ও বিদ্রুপাত্মক সহিত্য-রচয়িতা, কবি, সামাজিক সমালোচক, গীতিকার, কথাশিল্পী ও সাংবাদিক। বাংলা সাহিত্যের পাঠক সমাজে তিনি দাদাঠাকুর নামেই পরিচিত ছিলেন। মুখে মুখে ছড়া, হেঁয়ালী ও হাস্য কৌতুক রচনা করতেন। অসাধারণ রসজ্ঞান, উপস্থিত বুদ্ধি, আশু কবিত্বশক্তি আর স্নিগ্ধ-উজ্জল ব্যাক্তিত্বে ছোট-বড় সকলকেই প্রায় মুগ্ধ করতেন। দাদাঠাকুর খাঁটি বাঙালি তথা বাঙালি জাতির বিদূষক। দুটি পত্রিকা “জঙ্গিপুর-সংবাদ” ও “বিদূষক” এবং “বোতল-পুরাণ” পুস্তিকা প্রকাশের ও পরিচালনার মাধ্যমে তিনি হয়ে উঠেছিলেন একটি প্রতিষ্ঠান। তার জীবন নিয়ে ৬০ এর দশকে একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • আমি ভোটের লাগিয়া ভিখারি সাজিনু
    ফিরিনু গো দ্বারে-দ্বারে।
    (আমি ভিখারি, না শিকারি গো)
    মোরে ‘হাঁ’ ছাড়া কেউ ‘না’ বলিল না
    ক্যানভাস করিনু যারে।
    • শরৎচন্দ্র পণ্ডিতের শ্রেষ্ঠ কবিতা, সম্পাদনা- গোরা সিংহরায়, প্রকাশক-ভারবি, প্রকাশস্থল- কলকাতা, প্রকাশকাল- জানুয়ারি ২০০২, পৃষ্ঠা ১৪৪
  • ভোট সংগ্রহ মানে কি জান? আমাকে উপযুক্ত বল, আমাকে উপযুক্ত বল বলিয়া সাধারণকে অনুরোধ করা মাত্র। আরে ভাই, যার যোগ্যতা থাকে সে কি এইরূপ যোগ্য হইবার জন্য দ্বারে দ্বারে ঘোরে? লোকে যোগ্য লোককে আপনা হইতেই যোগ্য বালয়া স্বীকার করে।
    • দাদা ঠাকুরের পত্র, ১৩২২ সাল ১৯শে জ্যৈষ্ঠ ২য় বর্ষ ৩য় সংখ্যা। দাদাঠাকুর রচনা সমগ্র, সম্পাদনা- জঙ্গীপুর-সংবাদগোষ্ঠী, প্রকাশক- বিশ্ববাণী প্রকাশনী, কলকাতা, প্রকাশসাল- জুন ১৯৮৩ পৃষ্ঠা ২১৮
  • মরি হায় রে
    কলকাতা কেবল ভুলে ভরা।
    সেথায় বুদ্ধিমানে চুরি করে
    বোকায় পড়ে ধরা॥
    • কলকাতায় ভুল, শরৎচন্দ্র পণ্ডিতের শ্রেষ্ঠ কবিতা, সম্পাদনা- গোরা সিংহরায়, প্রকাশক-ভারবি, প্রকাশস্থল- কলকাতা, প্রকাশকাল- জানুয়ারি ২০০২, পৃষ্ঠা ১০০
  • এক ঠোকরে মাছ বেঁধেনা
    সেই বা কেমন বড়শী?
    এক ডাকেতে সাড়া দেয়না
    সেই বা কেমন পড়শী?
    • পুরাতন চলিত কথা, ১৩২৬ সাল, ৬ষ্ঠ বর্য, ২৯শ সংখ্যা। দাদাঠাকুর রচনা সমগ্র, সম্পাদনা- জঙ্গীপুর-সংবাদগোষ্ঠী, প্রকাশক- বিশ্ববাণী প্রকাশনী, কলকাতা, প্রকাশসাল- জুন ১৯৮৩, পৃষ্ঠা ১৫১

শরৎচন্দ্র পণ্ডিত সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

  • পণ্ডিত মহাশয়ের রসিকতা, শব্দ লইয়া তাঁহার অদ্ভুত পরিহাস-মিশ্র খেলা—এসব তাঁহার শ্বাস-গ্রহণের মতই সহজ ও সাবলীল এবং নির্বাধ ছিল।
  • ইনিই সেই ভাঁড়। ইনি খুব তেজস্থী ব্রাহ্মাণ, বেশ মিষ্ট করিয়া সকলকে হককথা শুনাইয়া দেন। বেচারার জাঁকজমক কিছুই নাই--সদানন্দ পুরুষ।
    • হরপ্রসাদ শাস্ত্রী, শরৎচন্দ্র পণ্ডিতের শ্রেষ্ঠ কবিতা, সম্পাদনা- গোরা সিংহরায়, প্রকাশক-ভারবি, প্রকাশস্থল- কলকাতা, প্রকাশকাল- জানুয়ারি ২০০২, পৃষ্ঠা ৭
  • বাঙলাদেশের অর্ঘ্যথালে তিনি যে খাঁটী দেশী নৈবেদ্য সাজিয়ে দিয়েছেন তার মধ্যে হয়ত আধুনিকতার পালিশ নাই, কিন্ত তার ঝাঁঝালো স্বাদ সদ্য আহরিত, নির্ভেজাল রসে পরম উপভোগ্য।
    • শ্রীকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়, জঙ্গিপুর সংবাদ, ১৩ বৈশাখ ১৩৭৯ (বঙ্গাব্দ)। সেরা মানুষ দাদাঠাকুর- নির্মলরঞ্জন মিত্র, প্রকাশক- রূপা অ্যাণ্ড কোম্পানী, প্রকাশসাল- ১৩৮৫ বঙ্গাব্দ পৃষ্ঠা ১৫

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]