বিষয়বস্তুতে চলুন

শিরক

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

শির্‌ক ইসলাম ধর্মে, শির্‌ক (আরবি: شرك širk) পৌত্তলিকতা বা বহুঈশ্বরবাদ চর্চা করার পাপকে বুঝায় অর্থাৎ শির্‌ক হল আল্লাহ্ ব্যতীত অন্য কাউকে উপাস্য হিসেবে সাব্যস্ত করা বা তার উপাসনা করা। শাব্দিকভাবে এর দ্বারা এক বা একাধিক কোন কিছুকে সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ব ও কর্তৃত্বের অংশীদার সাব্যস্ত করাকে বুঝায়।

এটি তাওহিদের পরিপন্থী একটি বিষয়। ইসলামে শির্‌ক হল একটি অমার্জনীয় অপরাধ যদি না মৃত্যু নিকটবর্তী হবার পূর্বে আল্লাহ্‌র নিকট এই অপরাধের জন্যে ক্ষমা চেয়ে না নেয়া হয়। ইসলামের নির্ভরযোগ্য তথ্য অনুসারে, আল্লাহ্ তায়ালার কাছে ক্ষমা না চাইলেও মৃত্যুর পর নিজের বিচার অনুসারে তার ইবাদতকারীদের যে কোন ভুল ক্ষমা করতে পারেন, কিন্তু শির্‌কের অপরাধী দুনিয়াতে ক্ষমা না চাইলে কখনোই ক্ষমা করবেন না।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • আর তুমি যদি জিজ্ঞাসা কর, আসমানসমূহ ও যমিন কে সৃষ্টি করেছেন? তারা (মুশরিকরা) অবশ্যই বলবে, মহাপরাক্রমশালী সর্বজ্ঞই কেবল এগুলো সৃষ্টি করেছেন।
    • সূরা যুখরুফ : আয়াত: ৯
  • আল্লাহ তাআলার সঙ্গে কোনো ব্যক্তি বা বস্তুকে অংশীদার সাব্যস্ত করার ব্যাপারে নিষেধ করেছেন। আল্লাহ বলেন- ‘যখন লোকমান উপদেশস্বরূপ তার ছেলেকে বলল- হে ছেলে! আল্লাহর সাথে শরিক করো না। নিশ্চয় আল্লাহর সাথে শরিক করা মহা অন্যায়।
    • (সুরা লোকমান : আয়াত ১৩)
  • আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন- তোমরা দুই ইলাহ গ্রহণ করো না; তিনিই একমাত্র ইলাহ। সুতরাং তোমরা আমাকেই ভয় করো।
    • (সূরা নাহল, আয়াত-৫১)
অপর আয়াতে বলা হয়েছে- 
  • আমিই আল্লাহ, আমি ছাড়া অন্য কোনো ইলাহ নেই। অতঃএব আমারই ইবাদাত করুন।
    • (সূরা ত্বহা, আয়াত-১৪)।
  • পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘যা তিনি ইচ্ছা করেন তা ছাড়া তার জ্ঞানের কিছুই তারা আয়ত্ত করতে পারে না।
    • (সূরা বাকারা, আয়াত-২৫৫)।
অপর আয়াতে বলা হয়েছে

তোমাদের সামান্য জ্ঞানই দান করা হয়েছে (সূরা বনি ইসরাইল, আয়াত-৮৫)। নভোমণ্ডল, ভূমণ্ডল এবং এতদুভয়ে অবস্থিত সবকিছুর আধিপত্য মহান আল্লাহরই। তিনি সব কিছুর ওপর ক্ষমতাবান (সূরা মায়িদাহ, আয়াত-১২০)।

  • পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তুমি আল্লাহর সাথে অন্য ইলাহকে ডেকো না। তিনি ছাড়া অন্য কোনো ইলাহ নেই। আল্লাহর সত্তা ব্যতীত সব কিছু ধ্বংসশীল। বিধান তাঁরই এবং তাঁরই নিকট তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে
    • (সূরা কাসাস, আয়াত ৮৮)।
  • অন্যত্র ইরশাদ করেন- এই যে মসজিদগুলো আল্লাহরই জন্য। সুতরাং আল্লাহর সাথে তোমরা অন্য কাউকে ডেকো না
    • (সূরা জিন, আয়াত-১৮)।

হাদিস[সম্পাদনা]

  • রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন- আমি তোমাদের ওপর শিরকে আসগর বা ছোট শিরকের ব্যাপারে অত্যন্ত ভয় করছি। প্রশ্ন করা হলো তা কী? তিনি বললেন, তা রিয়া বা লোক দেখানোর জন্য ইবাদত করা।
    • (সহিহ আত তারগিব ওয়াত তারহিব, হাদিস-৩২)।
  • হজরত সাঈদ ইবনে আবু উবাইদাহ রহ: থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আব্দুল্লাহ ইবনে উমার রা: এক ব্যক্তিকে এভাবে শপথ করতে শুনলেন, ‘না! এ কাবার শপথ।’ তখন ইবনে উমার রা: তাকে বললেন, আমি রাসূলুল্লাহ সা:-কে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি আল্লাহ ছাড়া অন্য কিছুর নামে শপথ করল, সে শিরক করল
    • (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস-৩২৫১)।
  • হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ রা: থেকে বর্ণিত- রাসূলুল্লাহ সা: ইরশাদ করেন, কোনো বস্তুকে কুলক্ষণ মনে করা ‘শিরক’, কোনো বস্তুকে কুলক্ষণ ভাবা শিরক। এ কথা তিনি তিনবার বললেন। আমাদের কারো মনে কিছু জাগা স্বাভাবিক, কিন্তু আল্লাহর ওপর ভরসা করলে তিনি তা দূর করে দেবেন
    • (সুনানে আবু দাউদ-৩৯১০)।
  • হজরত আব্দুল্লাহ রা: থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সা: ইরশাদ করেন, অশুভ লক্ষণ (বিশ্বাস করা) শিরকি কাজ। রাবি বলেন, আমাদের মধ্যে অশুভ লক্ষণের ধারণা আসে। তবে আল্লাহর ওপর ভরসার দ্বারা তা দূরীভূত হয়।
    • (সুনানে ইবনে মাজাহ-৩৫৩৮)।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]