বিষয়বস্তুতে চলুন

সঙ্গীত

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

সঙ্গীত দ্বারা গীত, বাদ্য, নৃত্য এই তিনটি বিষয়ের সমাবেশকে উল্লেখ করা হয়। গীত এক ধরনের শ্রবণযোগ্য কলা যা সুসংবদ্ধ শব্দ ও নৈশব্দের সমন্বয়ে মানব চিত্তে বিনোদন সৃষ্টি করতে সক্ষম। স্বর ও ধ্বনির সমন্বয়ে গীতের সৃষ্টি। এই ধ্বনি হতে পারে মানুষের কণ্ঠ নিঃসৃত ধ্বনি, হতে পারে যন্ত্রোৎপাদিত শব্দ অথবা উভয়ের সংমিশ্রণ। কিন্তু সকল ক্ষেত্রে সুর ধ্বনির প্রধান বাহন। সুর ছাড়াও অন্য যে অনুষঙ্গ সঙ্গীতের নিয়ামক তা হলো তাল।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • ভালবাসার সঙ্গীত-ই আজ
    হয়েছে আমার প্রাণ॥
  • আজ সকালে আজাদ হিন্দ ফৌজের এক কুচকাওয়াজ হইল। এক দল সৈন্য সমবেত কণ্ঠে হিন্দীতে সমর সঙ্গীত গাহিল। গানের সুরে প্রাণে উন্মাদনা আসে।
    • এম. জি. মুলকর - আজাদী সৈনিকের ডায়েরী, সমর সঙ্গীত: কদম কদম বাড়ায়ে যা - ১৯৪৫ (পৃ. ৮৮-৯০)।
  • জনমিয়া এ সংসারে     কিছুই শিখিনি আর
    শুধু গাই গান।
    স্নেহময়ী মা’র কাছে     শৈশবে শিখিয়াছিনু
    দুয়েকটি তান।
    শুধু জানি তাই,
    দিবানিশি তাই শুধু গাই।
  • আজকে যাকে সঙ্গীত বলা হয় তা প্রায়শই ক্ষমতার একচেটিয়া ছদ্মবেশ। যাইহোক, এটি সবকিছুর মধ্যে সর্বোচ্চ বিড়ম্বনা, এর আগে সঙ্গীতশিল্পীরা তাদের শ্রোতাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য এত কঠোর চেষ্টা করেননি এবং এর আগে কখনও যোগাযোগ এতটা প্রতারণাপূর্ণও ছিল না। সঙ্গীত এখন সঙ্গীতজ্ঞদের আত্ম-গৌরব এবং একটি নতুন শিল্প ক্ষেত্রের বৃদ্ধির জন্য কিছুটা আনাড়ি অজুহাত ছাড়া আর কিছু বলে মনে হচ্ছে
    • জ্যাক আটালি, ক্লাসিক এসেস অন টোয়েন্টিয়েথ-সেঞ্চুরি মিউজিক প্রবন্ধে (১৯৯৬), পৃষ্ঠা ১২২।
  • একটি শিল্প হিসাবে, সঙ্গীত তার নীতিগুলির সাথে কখনোই আপস করতে পারে না, এবং অন্যদিকে, রাজনীতি হল একটি আপোষের শিল্প, যখন রাজনীতি বর্তমান অস্তিত্বের সীমা অতিক্রম করবে এবং সম্ভাব্য উচ্চতর ক্ষেত্রটিতে আরোহণ করবে, তখন এটি সঙ্গীতের সাথে যোগদান করতে পারে। সঙ্গীত হল কাল্পনিক সমান উৎকর্ষের শিল্প, শব্দের দ্বারা আরোপিত সমস্ত সীমাবদ্ধতার মুক্ত একটি শিল্প, এমন একটি শিল্প যা মানুষের অস্তিত্বের গভীরতাকে স্পর্শ করে এবং শব্দের শিল্প যা সমস্ত দেশের সীমানা অতিক্রম করে।
  • সঙ্গীত আপনার সামনে একটি আয়নার মত। আপনি সবকিছু প্রকাশ করছেন, তবে অবশ্যই এটি আশ্চর্যের চেয়ে এটি ভাল। আপনাকে গভীর খনন করতে হবে এবং এটি যে কোনো পেশার জন্যই কঠিন হতে পারে। আমি মনে করি যে শেষ ফলাফলে খুশি বোধ করার জন্য আমাকে আসলে নিজেকে সীমার দিকে ঠেলে দিতে হবে।
    • এনিয়া, যেমনটি "এভরিওয়ান থিঙ্কস আই এম সো শোকাবল", দ্য টেলিগ্রাফে নিল ম্যাককর্মিকের সাথে একটি সাক্ষাত্কার (২৪ নভেম্বর ২০০৫) এ উদ্ধৃত হয়েছে।
  • জীবনের কালো মেঘে ভালোবাসাই একমাত্র ধনুক। এটি সকাল এবং সন্ধ্যার তারা। এটি শিশুর উপর জ্বলজ্বল করে, এবং শান্ত সমাধিতে তার দীপ্তি ছড়িয়ে দেয়। এটি শিল্পের জননী, কবি, দেশপ্রেমিক এবং দার্শনিকের অনুপ্রেরণাদাতা। এটি প্রতিটি হৃদয়ের বাতাস এবং আলো - প্রতিটি বাড়ির নির্মাতা, প্রতিটি চুলায় প্রতিটি আগুন জ্বালানোকারী। এটিই প্রথম অমরত্বের স্বপ্ন দেখেছিল। এটি সুরে বিশ্বকে পূর্ণ করে — কারণ সঙ্গীত হল প্রেমের কণ্ঠ। প্রেম হল যাদুকর, সেই যাদুকর যে মূল্যহীন জিনিসগুলিকে জয়ে পরিবর্তন করে এবং রাজকীয় রাজা এবং রানীকে সাধারণ মাটিতে পরিণত করে। এটা সেই বিস্ময়কর ফুলের সুগন্ধি, হৃদয়, এবং সেই পবিত্র আবেগ, যে ঐশ্বরিক মূর্ছনা ছাড়া আমরা পশুর চেয়েও কম; কিন্তু সঙ্গীতের সাথে, পৃথিবী স্বর্গ এবং আমরা এর দেবতা।
  • বিশুদ্ধ সঙ্গীত, স্রোত সঞ্চালনে সাহায্য করে। আমরা শব্দ দ্বারা এবং সৌন্দর্যের প্রতীক দ্বারা প্রার্থনা করি। সৃজনশীল শ্রমের সাগরে যাত্রা করার সময় হৃদয় এবং মন দ্বন্দ্ব করে না। এবং আত্মার পাখির ডানা, কাঁপবে, ও সম্প্রীতির হাওয়ায় উড়বে।
    • মর্যা, লিভস অফ মোরিয়াস গার্ডেন এক, (১৯২৪)।
  • গ্রন্থে প্রেমের গান এত আছে, এবং এক একটি গান শুনিয়া এত কথা মনে পড়ে, যে, সকল গান তুলিলে, সকল কথা বলিলে পুঁথি বাড়িয়া যায়। প্রকাশকের সহিত এক বিষয়ে কেবল আমাদের ঝগড়া আছে। তিনি ব্রক্ষ্মসঙ্গীত ও আধুনিক ইংরাজিওয়ালাদিগের রচনাকে ইহার মধ্যে স্থান দিলেন কেন? আমরা ত ভাল গান শুনিবার জন্য এ বই কিনিতে চাই না। অশিক্ষিত অকৃত্রিম হৃদয়ের সরল গান শুনিতে চাই। প্রকাশক স্থানে স্থানে তাহার বড়ই ব্যাঘাত করিয়াছেন।


বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]