বিষয়বস্তুতে চলুন

আইজাক নিউটন

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

আইজাক নিউটন (১৬৪৩–১৭২৭) প্রখ্যাত ব্রিটিশ পদার্থবিজ্ঞানী, গণিতবিদ, জ্যোতির্বিজ্ঞানী, প্রাকৃতিক দার্শনিক এবং আলকেমিস্ট। অনেকের মতে, নিউটন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সবচেয়ে প্রভাবশালী বিজ্ঞানী।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • প্লেটো আমার বন্ধু - এরিস্টটল আমার বন্ধু - কিন্তু আমার সবচেয়ে বড় বন্ধু সত্য।
    • মূল লেখা ল্যাটিন ভাষায় যা নিউটন নিজেই লিখেছিলেন Quaestiones Quaedam Philosophicae [কিছু দার্শনিক প্রশ্ন] এই শিরোনামে (১৬৬৪ খৃষ্টাব্দ)
  • আমি এটি এজন্য উল্লেখ করিনি যে, বিশ্ব চরাচর কখন ধ্বংস হবে তার সময় আমি সবাইকে জানাতে চাই; বরং এজন্য যে, কল্পনার রাজ্যে বসবাসকারী ব্যক্তিরা বিশ্বের ধ্বংস সম্বন্ধে যা বলছেন তার সবগুলোকে একটি সীমার মধ্যে বেঁধে দেয়া। এবং এটি করার মাধ্যমে আমি পবিত্র ভবিষ্যদ্বাণীসমূহের যেটি ব্যর্থ প্রমাণিত হবে তাকে সাথে সাথে বিফল হিসেবে চিহ্নিত করার উপায় নির্ধারণ করলাম।
  • আমি জানিনা বিশ্বের কাছে আমি কিভাবে উপস্থাপিত হয়েছি, কিন্তু আমার কাছে আমার নিজেকে মনে হয় এক ছোট বালক যে কেবল সমুদ্র উপত্যকায় খেলা করছে এবং একটি ক্ষুদ্র নুড়ি বা ক্ষুদ্রতর এবং খুব সাধারণ পাথর সন্ধান করছে, অথচ সত্যের মহাসমুদ্র তার সম্মুখে পড়ে রয়েছে যা অনাবিষ্কৃতই রয়ে গেল।
  • মাধ্যাকর্ষণ গ্রহগুলির গতি ব্যাখ্যা করে, তবে কে গ্রহগুলিকে গতিশীল করে তা ব্যাখ্যা করতে পারে না।
  • সত্যকে কখনও সরলতার মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায়, এবং জিনিসগুলির বহুগুণতা এবং বিভ্রান্তিতে নয়।
  • সাহসী অনুমান ছাড়া কোনও দুর্দান্ত আবিষ্কার কখনও করতে পারে না।
  • মহাকর্ষ সবসময় আমাদের এটি ব্যাখ্যা করতে পারে যে গ্রহগুলো কিভাবে ঘুরছে। কিন্তু এটি ব্যাখ্যা করতে পারে না যে কে গ্রহগুলোকে এই অবস্থায় রেখেছেন।
  • নাস্তিকতা এত নির্বোধ। যখন আমি সৌরজগতের দিকে তাকাই, আমি পৃথিবীকে সূর্য থেকে সঠিক দূরত্বে দেখি তাপ এবং আলোর সঠিক পরিমাণ পেতে। ঘটনাক্রমে তা হয়নি।
  • পৃথিবীর এই বিপুল জ্ঞানভাণ্ডারকে জানার ক্ষেত্রে আমি সাগরের তীরে দাঁড়িয়ে থাকা এক শিশুর মতো, যে শুধু সারাজীবন নুড়িই কুড়িয়ে গেল। সমুদ্রের জলরাশির মতো বিশাল এই জ্ঞান আমার অজানাই থেকে গেল।
  • ব্যাখ্যার পরিবর্তে একটি বিস্ময়বোধক হিসাবে আপনার জীবন যাপন করুন।
  • আমি যদি অন্যদের চেয়ে আরও বেশি দেখেছি, তবে এটি দৈত্যদের কাঁধে দাঁড়িয়ে।
  • আমরা সাদা চোখে একটি পানির কণা সম্পর্কেই জানতে পারি কিন্তু বিশাল সমুদ্র সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান সামান্যই।
  • কৌশল হল শত্রু না করে একটি পয়েন্ট তৈরি করার শিল্প।
  • আমি স্বর্গীয় দেহের গতি গণনা করতে পারি, কিন্তু মানুষের উন্মাদনা গণনা করতে পারি না।
  • অন্য কোন প্রমাণের অভাবে, বুড়ো আঙুলই আমাকে ঈশ্বরের অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত করবে।
  • আমার সমস্ত আবিষ্কার প্রার্থনার উত্তরে করা হয়েছে।
  • একজন স্বর্গীয় মাস্টার সমস্ত বিশ্বকে মহাবিশ্বের সার্বভৌম হিসাবে পরিচালনা করেন। তাঁর পূর্ণতার কারণে আমরা তাঁকে বিস্মিত করি, আমরা তাঁকে সম্মান করি এবং তাঁর সীমাহীন ক্ষমতার কারণে তাঁর সামনে পড়ে থাকি। অন্ধ শারীরিক প্রয়োজনীয়তা থেকে, যা সর্বদা এবং সর্বত্র একই, সময় এবং স্থানের কোনও বৈচিত্র্য আবর্তিত হতে পারে না, এবং সমস্ত সৃষ্ট বস্তু যা মহাবিশ্বে শৃঙ্খলা এবং জীবনের প্রতিনিধিত্ব করে কেবল তার মূল স্রষ্টার ইচ্ছাকৃত যুক্তির দ্বারা ঘটতে পারে, যাকে আমি প্রভু ঈশ্বর বলি।
  • যে অর্ধহৃদয় চিন্তা করে, সে ঈশ্বরে বিশ্বাস করবে না; কিন্তু যে সত্যিই মনে করে তাকে ঈশ্বরে বিশ্বাস করতে হবে।
  • সত্য হল নীরবতা ও ধ্যানের সন্তান।
  • আমার ক্ষমতা সাধারণ। শুধুমাত্র আমার গবেষণা আমাকে সাফল্য এনে দেয়।
  • একজন মানুষ মিথ্যা জিনিস কল্পনা করতে পারে, কিন্তু সে কেবল সত্য জিনিসগুলি বুঝতে পারে, কারণ যদি জিনিসগুলি মিথ্যা হয় তবে তাদের আশঙ্কা বোঝা যায় না।
  • আপনাকে নিয়ম তৈরি করতে হবে, সেগুলি অনুসরণ করতে হবে না
  • আমরা অনেক দেয়াল নির্মাণ করি এবং পর্যাপ্ত সেতু তৈরি করি না।
  • আমার আবিষ্কার প্রতিভা-প্রসূত নয়; বহু বছরের অধ্যবসায় ও নিরবচ্ছিন্ন সাধনার ফল।
  • আমি দর্শনতত্ত্বের ভিত্তি স্থাপন করেছি, এটির ব্যাখ্যা দার্শনিক নয় বরং গাণিতিক।

নিউটন সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

  • মানুষ হিসেবে তিনি ব্যর্থ ছিলেন কিন্তু দানব হিসেবে ছিলেন অত্যুৎকৃষ্ট।
    • অ্যালডাক্স হাক্সলি
  • যুক্তির যুগের প্রথম মানুষ ছিলেন না নিউটন, তিনি ছিলেন জাদুকরদের মধ্যে শেষজন , বেবিলনীয় ও সুমেরীয়দের শেষজন।
    • কেইনস
  • নিউটনের চরিত্র সাধারণ লোকের চরিত্রের ন্যায় নহে। উহা এমন সুন্দর যে চরিতাখ্যায়ক ব্যক্তি লিখিতে লিখিতে পরম পরিতোষ প্রাপ্ত হন। এবং যে উপায়ে তিনি মনুষ্য মণ্ডলী মধ্যে অবিসংবাদিত প্রাধান্য প্রাপ্ত হইয়াছিলেন তাহা পর্য্যালোচনা করিলে মহোপকার ও মহার্থ লাভ হইতে পারে। নিউটন অত্যুৎকৃষ্ট বুদ্ধিশক্তি সম্পন্ন ছিলেন; কিন্তু তদপেক্ষায় স্থানবুদ্ধিরাও তদীয় জীবনবৃত্ত পাঠে পদে পদে উপদেশ লাভ করিতে পারেন।
    • ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, জীবনচরিত- ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, প্রকাশক- সংস্কৃত প্রেস ডিপোজিটরি, কলকাতা, প্রকাশসাল- ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দ (১২৬৪ বঙ্গাব্দ), পৃষ্ঠা ২৭
  • অসামান্য প্রতিভাবান ছিলেন নিউটন, বিস্ময়কর ছিলেন সব দিকে,- অদ্ভুত, দুর্গম, অন্যমনস্ক, অমানবিক, নক্ষত্রের মতো সুদূর; মানুষ ছিলেন তিনি, তবু যেন মানুষ ছিলেন না, ছিলেন প্রাকৃতিক শক্তির মতো, যাঁর কাছাকাছি যাওয়া ছিল অসম্ভব।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]