বিষয়বস্তুতে চলুন

আব্দুল গাফফার খান

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

আব্দুল গাফফার খান (পশতু: عبدالغفار خان) (৬ ফেব্রুয়ারি ১৮৯০ - ২০ জানুয়ারি ১৯৮৮) ভারতে ব্রিটিশ শাসনে তার অহিংসের জন্য একজন পশতুন বংশোদ্ভূত ভারতীয় রাজনৈতিক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তৎকালীন ভারতের উত্তর- পশ্চিম সীমান্তে বিশৃঙ্খলা ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা রোধে মহাত্মা গান্ধীর অহিংস নীতি প্রচার ও ধারণ করার জন্য তাকে সীমান্ত গান্ধী উপাধী দেয়া হয় বলে ধারণা করা হয়। এছাড়াও তিনি সর্বদাই মহাত্মা গান্ধীর অহিংস নীতির একজন একনিষ্ঠ সমর্থক ছিলেন।১৯৬৭ সালে 'নেহেরু পুরস্কার' এবং ১৯৮৭ সালে ভারতরত্ন পুরস্কারে সম্মানিত হন আব্দুল গাফফার খান।তিনি ছিলেন 'ভারতরত্ন' পুরস্কার প্রাপ্ত প্রথম অ-ভারতীয় ব্যক্তি।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • [এটি] 'প্রদেশকে রক্তস্রোতে ভাসানোর করানোর জন্য মুসলিম লীগের একটি প্রকাশ্য ষড়যন্ত্র'... 'তিনি (গভর্নর) মুসলিম লীগের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে চেয়েছিলেন, যার অনুসারীরা নিরীহ লোকদের হত্যায় লিপ্ত হয়েছে।'... রাজ্যপাল চাইলে দুই দিনেই সীমান্তের সব অনাচার বন্ধ করতে পারেন, কিন্তু তিনি নিজেই সহিংস ও সাম্প্রদায়িক লীগ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন?
  • পাঠানরা! তোমাদের বাড়িটা ধ্বংসস্তূপে পড়ে গেছে। উঠ এটি পুনর্নির্মাণ কর এবং মনে রাখবে তুমি কোন জাতিভুক্ত।
    • একনাথ ইশ্বরনে উদ্ধৃত, এ ম্যান টু ম্যাচ হিজ মাউন্টেনস: বাদশা খান, ইসলামের অহিংস সৈনিক (নীলগিরি প্রেস, পেটলুমা, ১৯৮৪), পৃ. ২৫।
  • যখনই আমার প্রদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে জনগণের উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সুযোগ হয়েছে, আমি তাদের স্পষ্টভাবে বলেছি যে, প্রকৃতপক্ষে আমি মনে করি যে ভারতকে ভাগ করা উচিত নয় তার কারণ ও ফলাফল আজ আমরা প্রত্যক্ষ করছি। হাজার হাজার যুবক-বৃদ্ধ, শিশু, পুরুষ ও নারীকে হত্যা করা হয়েছিল। কিন্তু এখন এ বিভাজন একটি পরিপূর্ণ সত্য এবং বিরোধ শেষ হয়েছে। আমি ভারত বিভাগের বিরুদ্ধে অনেক বক্তৃতা দিয়েছি, কিন্তু প্রশ্ন হল: কেউ কি আমার কথা শুনেছে? আপনি আমার সম্পর্কে কোন মতামত রাখতে পারেন, কিন্তু আমি ধ্বংসের মানুষ নই, নির্মাণের মানুষ। আপনি যদি আমার জীবন অধ্যয়ন করেন তবে আপনি দেখতে পাবেন আমি এটাকে(আমার জীবনকে) আমাদের দেশের কল্যাণে নিবেদন করেছি। পাকিস্তান সরকার যদি আমাদের দেশের জন্য কাজ করে, তাহলে আমি আবারও বলছি যে, আমি পাকিস্তানের ধ্বংসের পক্ষে নই ধ্বংসে কোন কল্যাণ নেই না হিন্দুদের, না মুসলমানদের, না সীমান্ত, পাঞ্জাব,পূর্ব পাকিস্তান বা সিন্ধ এর থেকে লাভের জন্য দাঁড়ায়। শুধু নির্মাণে কল্যাণ আছে। আমি আপনাকে স্পষ্টভাবে বলতে চাই যে আমি কাউকে ধ্বংসে সমর্থন করব না। যদি কোন গঠনমূলক কর্মসূচী আপনার সামনে থাকে, আপনি যদি আমাদের জনগণের জন্য গঠনমূলক কিছু করতে চান, তাত্ত্বিকভাবে নয়, বাস্তবে, আমি এই হাউসের সামনে ঘোষণা করছি যে আমি এবং আমার জনগণ আপনার সেবায় নিয়োজিত... (ফেব্রুয়ারি ১৯৮৪)
    • খান আব্দুল গফ্ফার খান: গিরিধারী লাল পুরী রচিত মানবতার প্রকৃত সেবক পৃষ্ঠা১৮৮-১৯০
  • আমার ধর্ম হলো সত্য, ভালবাসা, আল্লাহর সেবা ও মানবতা। পৃথিবীতে যত ধর্মই এসেছে সবই প্রেম ও ভ্রাতৃত্বের বার্তা নিয়ে এসেছে। যাহারা আপন জনগণের কল্যাণে উদাসীন, যাহাদের অন্তর প্রেমশূন্য, তাহারা ধর্মের অর্থ জানে না।
    • প্রগতিশীল ফেব্রুয়ারি ২০০২ থেকে উদ্ধৃত
  • আমার মত একজন মুসলমান বা পাঠান অহিংসার ধর্ম গ্রহণ করায় আশ্চর্যের কিছু নেই। এটা কোন নতুন ধর্ম নয়। চৌদ্দশত বছর আগে নবী মক্কায় থাকাকালীন এটি অনুসরণ করেছিলেন।
    • লেখকঃ খান আব্দুল গাফফার খান
    • বাদশা খান একনাথ ইশ্বরনের (পেঙ্গুইন বই)।
  • বাদশা খান বলেন, “এটা আমার অন্তঃস্থ প্রত্যয়, ইসলাম হল আমল, ইয়াকীন, মুহাব্বত” – নিঃস্বার্থ সেবা, বিশ্বাস এবং ভালোবাসা।
    • বাদশা খান একনাথ ইশ্বরনের (পেঙ্গুইন বই)।
  • শুধুমাত্র একটি মৃত জাতিই তার বীরদের তখন স্মরণ করে যখন তারা মারা যায়। প্রকৃত জাতি তাদের তখনই সম্মান করে যখন তারা বেঁচে থাকে।
    • জারিফ, আদিল শনিবার, (২৮ জানুয়ারি, ২০০৬) স্বপ্নের মৃত্যু। ডেইলি টাইমস
  • ১৯৫৮ সালে, গাফফার খান লিখেছিলেন যে তিনি 'সেই লোকদের দ্বারা নিহত হয়েছেন যাদের জন্য তিনি তার নিজের লোকদের ত্যাগ করেছিলেন'।
    • পৃষ্ঠা ২৪৫ (ড. খান সাহেবদের ওয়ান ইউনিটের সমর্থনের রেফারেন্সে লেখা।
    • আফগান ফ্রন্টিয়ার: মধ্য এশিয়ায় দ্বন্দ্ব ও লড়াই
    • ভিক্টোরিয়া স্কোফিল্ড দ্বারা
  • আমার একটা বড় ইচ্ছা আছে।
    আমি এই ভদ্র, সাহসী, দেশপ্রেমিক মানুষকে বিদেশীদের অত্যাচার থেকে উদ্ধার করতে চাই যারা তাদের অপদস্থ ও অসম্মান করেছে।
    আমি তাদের জন্য একটি স্বাধীনতার পৃথিবী তৈরি করতে চাই, যেখানে তারা শান্তিতে থাকতে পারে, যেখানে তারা হাসতে পারে এবং সুখী হতে পারে।
    আমি সেই মাটিতে চুম্বন করতে চাই যেখানে তাদের ধ্বংসপ্রাপ্ত বাড়িগুলি একবার দাঁড়িয়েছিল, আগে তারা বর্বর অপরিচিতদের দ্বারা ধ্বংস হয়েছিল।আমি ঝাড়ু নিয়ে গলি-গলি ঝাড়ু দিতে চাই, নিজের হাতে তাদের ঘর পরিষ্কার করতে চাই।আমি তাদের পোশাক থেকে রক্তের দাগ ধুতে চাই।
    আমি বিশ্বকে দেখাতে চাই তারা কত সুন্দর, পাহাড়ের এই মানুষগুলো, এবং তারপরে আমি ঘোষণা করতে চাই: আপনি যদি পারেন, আমাকে দেখান, এদের থেকে কোন ভদ্র, আরও বিনয়ী, আরও সংস্কৃতিবান মানুষ।
    • বাদশা খান, এ ম্যান টু ম্যাচ হিজ মাউন্টেন্স
    • একনাথ ঈশ্বরন

আব্দুল গাফফার খানের বক্তৃতা[সম্পাদনা]

  • “ব্রিটিশরা আমাদের যে গণতন্ত্র দিয়েছিল তা কোথায়? আইয়ুব খান তা আমাদের থেকে কেড়ে নিয়েছিলেন। আর বিনিময়ে তিনি আমাদের কী দিয়েছেন? তিনি আমাদের গণতন্ত্রের তার নিজস্ব সংস্করণ দিয়েছেন যা গণতন্ত্র নামেরও যোগ্য নয়।"আমাদের আর্থিক অবস্থা দেখুন, আমাদের ভাষা, সংস্কৃতি, সমাজ দেখুন। সে সব নিয়ে গেছে। আমাদের স্কুল, আমাদের কলেজ, আমাদের সন্তানদের শিক্ষা ও নির্দেশনা এবং তার আচরণ দেখুন। আমি সবসময় এই লোকেদের দেখে অবাক হই যারা আমাদের বলে থাকে: "আমরা এমনভাবে উন্নতি করছি। পাকিস্তানের একটা লক্ষ্য আছে এবং আমরা দ্রুত সেটার দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।” আসলে এটা নিয়ে বেশ কিছু কৌতুক প্রচলিত আছে। আমি আপনাকে তার একটি বলছি।একজন মহিলা তার স্বামীকে উষ্ণভাবে জড়িয়ে ধরে বললেন: "প্রিয়তম, আমি একটি হীরার নাকের অলঙ্কার চাই!" স্বামী উত্তর দিল: "আসলে আমি ভাবছিলাম কিভাবে আমি তোমার নাক পুরোপুরি কেটে ফেলতে পারি।"আমরা যা চাচ্ছি তা হল একটি নাকের অলঙ্কার, এটি এমনকি হীরা হতে হবে না। কিন্তু পাকিস্তান ভাবছে কীভাবে তারা আমাদের নাক পুরোপুরি কেটে ফেলতে পারে।” “আমি চাই আপনি এবং পাকিস্তানের নেতারা আমাদের বেলোচি ভাইয়েরা গত বিশ বছর যে দুর্দশার মধ্যে জীবন যাপন করছেন তা একবার দেখুন। কেউ তাদের কথা না শুনলে অস্ত্র তুলে নেওয়া ছাড়া উপায় ছিল না। আপনারা সবাই জানেন তাদের সাথে কি হয়েছিল তাদের কি অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছিল?এখন পাকিস্তান খুঁজে পেয়েছে যে নিষ্ঠুরতা ও নিপীড়ন দিয়ে প্রশ্নের সমাধান করা যায় না এবং এই গরীবদের বলা হয়; চলো আমরা একসাথে বসে আমাদের বিবাদ মিটিয়ে ফেলি। পাকিস্তানের হৃদয়ে বেলুচি, সিন্ধি, বাঙালি বা পাখতুনের কোনো স্থান নেই তা জানতে আমার বেশি সময় লাগেনি। তাই আমি আমার বেলুচি ভাইদের জানাতে চাই যে সিন্ধি এবং পাখতুনরাও একইভাবে নির্যাতিত এবং আমাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য একই। পাঞ্জাবের দিকে তাকালেই পাকিস্তানের আসল নকশা পরিষ্কার হবে। পাঞ্জাবের নেতারা তাদের জিরগার সাথে দেখা করেন এবং আলোচনা ও পরামর্শ করেন। তারা বলে “পাখতুনদের দিকে তাকান, তারা সবাই খুব ধনী। তাদের বিদ্যুৎ আছে। সিন্ধিদের দিকে দেখুন, তাদের অনেক জমি আছে। বেলুচিদের সম্পর্কে তারা বলেন, তাদের দেশে খনিজ সম্পদ গ্যাসের খনি রয়েছে।ভাইয়েরা, এ সবই ছলচাতুরী এবং তারা এসব বলছে কারণ তারা পাঠানদের বিদ্যুৎ, সিন্ধিদের জমি এবং বালুচিদের খনিজ সম্পদ নিজেদের জন্য চায়। আপনারা নিজেরাই বিচার করে দেখুন, এটা কি ইসলামী আকীদার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ? ইসলাম কি আপনাকে বলেছে অন্য ভাইয়ের বিদ্যুৎ, উর্বর জমি খনি ও খনিজ সম্পদ দখল করতে?
  • একবার পাখতুনদের সম্পর্কে রুশ প্রধানমন্ত্রী ক্রুশ্চেভের দেওয়া বক্তব্যের জন্য পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঞ্জুর কাদির আব্দুল গাফফার খানকে দেখতে এসেছিলেন।সে সম্পর্কে তিনি বলেন,
তিনি চার ঘণ্টা কথা বলেছেন। প্রথমে গণতন্ত্র সম্পর্কে। তিনি বলেন, ‘যেহেতু এখানে পাকিস্তানে গণতন্ত্র কাজ করেনি, তাই আমরা জনগণকে আর গণতন্ত্র দিই না।আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম, “প্রথমে কোথায় গণতন্ত্র  ছিল? আপনার কখনোই গণতন্ত্র ছিল না, তাহলে আপনি কিভাবে বুঝবেন এটা কাজ করে কি না? ভারতে তাদের তিন-চারটি নির্বাচন হয়েছে। আপনি পাকিস্তানে শেষ কবে নির্বাচন করেছিলেন? আপনি কি কখনো জনগণকে জিজ্ঞেস করেছেন তারা কী ধরনের সরকার চান?

আব্দুল গাফফার খান সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

  • আমার মনে হয় গান্ধীর সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ থাকা সত্ত্বেও বাদশা খান এই মহান নেতার প্রজ্ঞা বুঝতে ব্যর্থ হন। গান্ধী যখন হিন্দুদের সমস্যার কথা ভাবতেন তখন তিনি(গান্ধী) মুসলমানদের স্বার্থের কথা না ভেবে তা করতে পারেননি।তিনি(গান্ধী) যখন ভারতের সমস্যার কথা ভাবতেন, তখন বিশ্বের সমস্যাগুলো ভুলতে পারেননি। বাদশা খানের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা উল্টো। তিনি যখন হিন্দুদের কথা ভাবেন, তখন তিনি ভুলতে পারেন না যে তিনি একজন খুদাই খিদমতগার মুসলিম।আবার যখন সে মুসলমানদের কথা ভাবে, তখন সে ভুলতে পারে না যে সে একজন পাঠান।
    • হামিদ দলওয়াই এর "ধর্মনিরপেক্ষ ভারতে মুসলিম রাজনীতি
  • দুর্ভাগ্যবশত, ভারতের মুসলিম সমাজে এখনও গান্ধী তৈরি হয়নি। প্রকৃতপক্ষে, এটা সম্ভব হবে না যতক্ষণ পর্যন্ত না এমন একটি প্রজন্ম তৈরি না হয় যারা আধুনিক মূল্যবোধের আলোকে মুসলমানদের ধর্ম ও সংস্কৃতিকে নির্মমভাবে যাচাই-বাছাই করে। বাদশা খান একজন মহান এবং ভালো মুসলিম এবং গান্ধীর অনুসারীও। কিন্তু তিনি নিজে গান্ধী নন।
    • হামিদ দলওয়াই এর "ধর্মনিরপেক্ষ ভারতে মুসলিম রাজনীতি

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]