বিষয়বস্তুতে চলুন

চঞ্চল চৌধুরী

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে
চঞ্চল চৌধুরী

চঞ্চল চৌধুরী (জন্ম: ১ জুন ১৯৭৪) একজন বাংলাদেশী অভিনেতা, মডেল, শিক্ষক ও গায়ক। তিনি টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র দুই মাধ্যমেই অভিনয় করে থাকেন। তিনি তার অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, এবং সেরা অভিনেতা বিভাগে একটি মেরিল-প্রথম আলো দর্শক জরিপ পুরস্কার ও দুটি সমালোচক পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়া তিনি মোট বারোটি মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • ১৭ বছরের অভিনয় জীবনের প্রথম দিন যেমন সিরিয়াস ছিলাম আজও আছি। তবে বাস্তবে অনেক রিল্যাক্স থাকি।
    • ২০ আগস্ট ২০১৭-এ প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে, উদ্ধৃত: আনন্দ আলো
  • ভ্রাতা ও ভগ্নিগন, আমি হিন্দু নাকি মুসলিম, তাতে আপনাদের লাভ বা ক্ষতি কি? সকলেরই সবচেয়ে বড় পরিচয় ‘মানুষ’। ধর্ম নিয়ে এসকল রুচিহীন প্রশ্ন ও বিব্রতকর আলোচনা সকল ক্ষেত্রে বন্ধ হোক। আসুন, সবাই মানুষ হই।
  • এটা আমার একার বিষয় না, এটা সার্বিকভাবে চিন্তার বিষয়। ধর্মীয় সংখ্যালঘু নিয়ে আলোচনা পুরনো কিন্তু এখন যারা মুক্তমনা তাদেরকেই সংখ্যালঘু হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।
  • পৃথিবীতে দুই ধরনের সিনেমা হয়—রিয়েলিস্টিক আর ফ্যান্টাসি। যদিও আমাদের উপমহাদেশে ফ্যান্টাসি গল্পের সিনেমা বেশি হয়। নাচ, গান ও অ্যাকশন নির্ভর সিনেমা হয়। তবে আমি জীবনঘনিষ্ঠ গল্পের ছবিতে কাজ করতে ভালোবাসি। আমি তৈরিই হয়েছি সেভাবে। দর্শকও এই গল্পের সঙ্গে চলতে চায়।
    • ২৯ মে, ২০২২-এ প্রকাশিত একটি সাক্ষাৎকারে, উদ্ধৃত: ঢাকা মেইল
  • আমি যখন অভিনয় করি, এই জনপ্রিয়তার কথা মাথায় থাকে না। জনপ্রিয়তার জন্য কাজও করি না। অভিনয় একটা সাধনার ব্যাপার। সেই সাধনার মধ্যে দিয়ে তিলে তিলে নিজেকে গড়তে হয়। সারাক্ষণ চরিত্র-সৃষ্টির চিন্তার মধ্যে থাকতে হয়। সেটাই চেষ্টা করি। অবশ্য প্রশংসা পেলে ভালোই লাগে। আর সেটাই তো আমাদের পাওয়া।
  • বাংলা নাটক চুরি-চামারির পাল্লায় পড়েছে।
  • বাবাকে একদিন জিজ্ঞাসা করেছিলাম, ছোটবেলা থেকে তোমার পরিচয়ে পরিচিত হয়ে এসেছি। এখন তোমাকে কেউ যখন চঞ্চল চৌধুরীর বাবা বলে চেনে, তোমার কেমন লাগে? বাবা কোনো উত্তর না দিয়ে আমার দিকে শুধু ভেজা চোখে কিছুক্ষণ তাকিয়ে ছিল। তাঁর সেই গর্বিত মুখটা দেখে, আমার চোখ দুটোও ঝাপসা হয়ে গিয়েছিল। সন্তানের সব সফলতায় বাবা-মায়ের যে কী শান্তি, কী আনন্দ…তা আমি দেখেছি।
    • ১৫ ডিসেম্বর ২০২২-এ প্রথম আলোর কর্মী উৎসবে, উদ্ধৃত: প্রথম আলো
  • একজন অভিনেতাকে সব সময় কাদামাটির মতো হয়ে থাকতে হয়। মনকে রাখতে হয় ভেজা তুলোর মতো। চরিত্রের ইমোশনের সঙ্গে যাতে অভিনেতা মিশে যেতে পারেন সহজে। কিন্তু যত সহজ করে বলা হলো ততটা সহজ নয় বিষয়টি। চারপাশের অস্থিরতা, নিত্যদিনের ঘটনাপ্রবাহ মনকে কঠিন করে ফেলে। আমি তাই ইদানীং অদরকারি অনেক কিছু এড়িয়ে যাই ইচ্ছাকৃতভাবে। শুটিংস্পটে হয়তো দুটো দৃশ্যের মাঝে একটু বিরতি পেলে, ঘুমিয়ে যাই সঙ্গে সঙ্গে। যাতে আশপাশের আলাপ আমার মনোযোগ না কেড়ে নেয়।
  • এখন দুই বাংলা- এপার বাংলা, ওপার বাংলা আমরা এক হয়ে কাজ করছি। এখন কোনো ভেদাভেদ নাই আমাদের মধ্যে। ওটিটি প্ল্যাটফরমে আপনারা সেটা নিয়মিত দেখছেন।
  • সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গজিয়ে ওঠা ভাইরাল ব্যক্তিদের কারণে সংস্কৃতি কলুষিত হচ্ছে।

তার সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

  • ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অভিনয় শেখানোর জন্য চঞ্চল চৌধুরীর চোখ অভিনয় শেখার প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ করা উচিত।
  • আমাদের একজন চঞ্চল চৌধুরী আছেন।
  • বহুদিন পরে চঞ্চলের সঙ্গে দেখা এবং মনে হলো যেন সেই 'মনের মানুষ' শুটিংয়ের দিনগুলো ফিরে পেলাম। চঞ্চল তো সত্যিই মনের মানুষ...।
  • এত বছর অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খানের পাশে বাংলাদেশের কোনও শিল্পী দাঁড়ায়নি। গতকাল কিন্তু বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের হয়ে চঞ্চল চৌধুরী তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]