বিষয়বস্তুতে চলুন

ফজলুল হক আমিনী

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

ফজলুল হক ইবনে ওয়াজিদ আদ-দ্বীন আল-আমিনী (১৫ নভেম্বর ১৯৪৫ - ১২ ডিসেম্বর ২০১২) বা ফজলুল হক আমিনী ছিলেন বাংলাদেশের একজন ইসলামী চিন্তাবিদ, ইসলামী আইনজ্ঞ (মুফতি) ও রাজনীতিবিদ। তিনি ২০০২ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ করার ফলে ইসলামের নবী আয়েশার বিয়েকে চ্যালেঞ্জ করা হবে, যিনি মাত্র আট বছর বয়সে নাবালিকা আয়েশাকে বিয়ে করেছিলেন। ... বর্তমান সরকার যে নতুন আইন প্রবর্তিত করেছে তা নবীর নৈতিক চরিত্রকে বিতর্ক ও চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলবে। ... ইসলাম বাল্যবিবাহের অনুমতি দিয়েছে এবং নারীকে বেশি অধিকার দেওয়ার নামে কোনো শাসক যদি কখনো এই বিষয়টিকে স্পর্শ করার চেষ্টা করে তবে তা সহ্য করা হবে না।

আমিনী সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

  • কয়েক সপ্তাহ আগে ইসলামপন্থী আলেম মুফতি ফজলুল হক আমিনী ও মাওলানা রেজাউল করিম বাংলাদেশে সরকারের 'ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে' আন্দোলন শুরু করেন। এরপর থেকে এই ধর্মান্ধ নেতাদের শত শত ও হাজার হাজার অনুসারী দেশজুড়ে নানা ধরনের বিক্ষোভে সক্রিয় রয়েছে। গণমাধ্যমে আরও বলা হয়, এসব নেতাদের সরকারবিরোধী বিক্ষোভে কোরানিক মাদ্রাসায় নাবালক ছেলেদের যোগ দিতে বাধ্য করা হয়েছিলো। বেসরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশের বিভিন্ন মাদ্রাসায় প্রায় ৯০ লাখ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে।
  • মুফতি ফজলুল হক আমিনীকে বাংলাদেশে 'রাজনৈতিক টাউট' হিসেবে চিহ্নিত করা হয়, যিনি কার্যত জনগণের মধ্যে জিহাদি ধারণা বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা আয় করছেন। তিনি পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই সহ বিভিন্ন ইসলামপন্থী গোষ্ঠীর বেতনের আওতায় রয়েছেন। আল-কায়েদা, ইরান, হামাস, হিজবুল্লাহ, লস্কর-ই-তৈয়বা এবং কাশ্মীরের অভ্যন্তরে জঙ্গি সংগঠনগুলির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে আমিনির সঙ্গে। তিনি কাশ্মীর, ফিলিস্তিন এবং বিশ্বের অন্যান্য স্থানে 'জিহাদে' অংশ নেওয়ার জন্য স্থানীয় যুবকদের নিয়োগের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত।
  • ২০১১ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশের মুফতি ফজলুল হক আমিনী ঘোষণা করেন যে, যারা সে দেশে বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ করার আইন পাস করার চেষ্টা করছেন তারা মুহাম্মদকে একটি খারাপ আলোকে ফেলছেন: "বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ করা ইসলামের নবীর বিবাহকে চ্যালেঞ্জের কারণ হবে, নবীর নৈতিক চরিত্রকে বিতর্ক ও চ্যালেঞ্জের মধ্যে ফেলবে"। তিনি হুমকি দিয়ে বলেন, "ইসলাম বাল্যবিবাহের অনুমতি দেয় এবং নারীদের আরও অধিকার দেওয়ার নামে কোনো শাসক যদি কখনো এই বিষয়টিতে হাত দেওয়ার চেষ্টা করে তবে তা সহ্য করা হবে না"। মুফতি বলেন, বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ করা যে কোনো আইনের জন্য দুই লাখ জিহাদি তাদের জীবন উৎসর্গ করতে প্রস্তুত।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]