মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ

উইকিউক্তি থেকে, উন্মুক্ত উৎসের উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
আমরা এই মৌলিক নীতি দিয়ে শুরু করছি যে আমরা সবাই নাগরিক ও একটি রাষ্ট্রের সমান নাগরিক।

মুহাম্মদ আলি জিন্নাহ (২৫ ডিসেম্বর ১৮৭৬ – ১১ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮) ছিলেন একজন গুজরাটি বংশদ্ভুত আইনজীবী, রাজনীতিবিদ ও পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা। ১৯১৩ সাল থেকে শুরু করে ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা পর্যন্ত জিন্নাহ নিখিল ভারত মুসলিম লীগের নেতা ছিলেন। স্বাধীনতার পর তিনি পাকিস্তানের প্রথম গভর্নর জেনারেল হন এবং আমৃত্যু এই পদে বহাল থাকেন। পাকিস্তানে তাকে কায়েদে আজম (মহান নেতা) ও বাবায়ে কওম (জাতির পিতা) হিসেবে সম্মান করা হয়।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে একশোবার ভাবুন, কিন্তু একবার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর একজন মানুষ হয়ে তার পাশে দাঁড়ান।
  • আমরা যখন বলি 'এই পতাকা (মুসলিম লীগের পতাকা) ইসলামের পতাকা' তারা মনে করে আমরা রাজনীতিতে ধর্মকে পরিচয় করাচ্ছি - এটি সত্যি যার জন্য আমরা গর্বিত'। ইসলাম আমাদের একটি সম্পূর্ণ বিধি দিয়েছে। এটি কেবল ধর্ম নয়, এতে আইন, দর্শন ও রাজনীতি রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, এতে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত একজন মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ সবকিছু রয়েছে। আমরা যখন ইসলামের কথা বলি তখন আমরা এটাকে গ্রহণযোগ্য শব্দ হিসেবে গ্রহণ করি। আমরা কোন খারাপ কিছু বোঝাতে চাই নাম আমাদের ইসলামি নিয়মের ভিত্তি হল আমরা স্বাধীনতা, সাম্য ও ভ্রাতৃত্বের পক্ষে।
  • কোন জাতি গৌরবের উচ্চতায় উঠতে পারবে না যদি না তোমাদের নারীরা তোমার পাশে না থাকে। আমরা কুপ্রথার শিকার। আমাদের নারীদের ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে বন্দী করে রাখা মানবতাবিরোধী অপরাধ। আমাদের নারীদের যে শোচনীয় অবস্থার মধ্যে থাকতে হয় তার কোথাও কোনো অনুমোদন নেই।
    • মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিয়ন, আলীগড়ের একটি সভার বক্তৃতা, ১০ মার্চ ১৯৪৪
  • আপনি আপনার মর্জি মতো মন্দিরে যেতে পারেন, আপনি এই পাকিস্তান রাষ্ট্রে মর্জি মতো আপনার মসজিদ বা অন্য কোনো উপাসনালয়ে যেতে পারেন। আপনি যে কোনো ধর্ম বা বর্ণ বা ধর্মের অন্তর্গত হতে পারেন। রাষ্ট্রের কাজের সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই।
    • পাকিস্তানের প্রথম গণপরিষদের রাষ্ট্রপতির ভাষণ, করাচি (১১ আগস্ট ১৯৪৭)
  • পৃথিবীতে এমন কোনো শক্তি নেই যে পাকিস্তানকে ধ্বংস করতে পারবে।
    • ৩০ অক্টোবর ১৯৪৭, লাহোর বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে একটি সমাবেশের বক্তৃতা।
  • আমি তাদের যুক্তি বুঝতে পারছি না যারা ইচ্ছাকৃতভাবে ও দুষ্টুমি করে প্রচার করছে যে পাকিস্তানের সংবিধান ইসলামি শরিয়া ভিত্তিক হবে না। ইসলামি নীতি আজও জীবনের জন্য ততটাই প্রযোজ্য যতটা সেগুলো ১৩০০ বছর আগে ছিল।
    • করাচি বার অ্যাসোসিয়েশনের বক্তৃতা ২৫ জানুয়ারী ১৯৪৮।
  • আপনারা হয়তো অবগত আছেন যে, সরকার সংখ্যালঘুদের ভয় ও সন্দেহ দূর করার জন্য সত্যিকারের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং যদি এখনও সিন্ধু থেকে তাদের (হিন্দু সংখ্যালঘুদের) প্রস্থান অব্যাহত থাকে, তবে এর কারণ এটা নয় যে তাদের এখানে রাখতে চাওয়া হয়নি, বরং এর কারণ তারা সীমান্তের ওপারের লোকদের কথা শুনতে বেশি প্রবণ যারা তাদের বের করে আনতে আগ্রহী। আমি তাদের 'প্রতিশ্রুত ভূমি'-তে তাদের জন্য মোহভঙ্গ ছাড়া সব কিছুর জন্য দুঃখিত।
  • আমি আপনাদের কাছে এ কথাটা পরিষ্কার করে জানিয়ে রাখতে চাই, নিখিল পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা উর্দু হতে হবে। কোনাে প্রাদেশিক ভাষা রাষ্ট্র ভাষা হতে পারে না। আর এ ব্যাপারে আপনাদেরকে যারা বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করবে তারা অবশ্যই পাকিস্তানের জানে দুশমন। রাষ্ট্রের যদি একটি রাষ্ট্র ভাষা না করা যায়, তাহলে সে রাষ্ট্রটিকে একটি শক্তিশালী ঐক্যের বন্ধনে আবদ্ধ করা যাবে না। পৃথিবীর ইতিহাস এবং বড় বড় দেশগুলাের দিকে আপনাদের তাকাতে বলব। সেসব দেশসমূহে রাষ্ট্রভাষা কয়টি এবং অধিকাংশের বােধগম্য ভাষাটিকে কী রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে নির্বাচন করা হয়নি? সুতরাং, পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা উর্দুই হওয়া দরকার।
  • চরিত্র, সাহস, শিল্প ও অধ্যবসায় এই চারটি স্তম্ভ যার উপর মানব জীবনের সমগ্র স্থাপনা গড়ে তোলা যায় এবং ব্যর্থতা আমার কাছে অজানা একটি শব্দ।
    • মুহাম্মদ আলি জিন্নাহ : অ্যা পলিটিক্যাল স্টাডি (১৯৬২) এম. এইচ. সাঈফ, পৃ. ৯

জিন্নাহ সম্পর্কে উক্তি[সম্পাদনা]

ইতিহাসের সবচেয়ে অসাধারণ মানুষদের একজন। ~ জওহরলাল নেহেরু
  • শ্রী জিন্নাহ ছিলেন একজন আইনজীবী হিসেবে, একসময়ের একজন কংগ্রেসম্যান হিসেবে মহান, মুসলমানদের নেতা হিসেবে মহান, একজন বিশ্ব রাজনীতিবিদ ও কূটনীতিক হিসেবে মহান এবং একজন কর্মপন্থী হিসেবে সর্বশ্রেষ্ঠ ছিলেন। শ্রী জিন্নাহর মৃত্যুতে, বিশ্ব একজন সর্বশ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক এবং পাকিস্তান তার জীবনদাতা, দার্শনিক ও পথপ্রদর্শককে হারিয়েছে।
  • কিন্তু এতে সন্দেহ নেই যে জিন্নাহর নেতৃত্বে পাকিস্তানের সৃষ্টি খালি চোখে ও সবচেয়ে নৃশংসভাবে সহিংসতার উত্থান ছিল। কেউই যুক্তিসঙ্গতভাবে নিশ্চিত হতে পারে না যে ভারত নিশ্চিতভাবে স্বাধীনতা অর্জন করত...এমনকি গান্ধী ছাড়া, কিন্তু জিন্নাহ ছাড়া পাকিস্তান হত কিনা তা অত্যন্ত সন্দেহজনক। সুতরাং, যদি আমরা একা ফলাফলের ভিত্তিতে বিচার করি, ১৯৪৬-৭ সালের ঘটনাবলী ব্যবহারিক রাজনীতিতে অহিংসার থেকে সহিংসতার ও কংগ্রেসের নেতাদের থেকে জিন্নাহর শ্রেষ্ঠত্বের সাক্ষ্য দেয়।
    • আর.সি. মজুমদার. হিস্টোরি অফ দ্য ফ্রিডম মুভমেন্ট ইন ইন্ডিয়া: মুখবন্ধ থেকে তৃতীয় খণ্ড: আর.সি. মজুমদার, ফিরমা কে.এল মুখোপাধ্যায়, কলকাতা।
  • সম্মানিত সদস্যবৃন্দ...আমি আপনাদের, সদস্যদের, কায়েদে আজম মুহাম্মদ আলি জিন্নাহকে আমাদের শ্রদ্ধা জানাতে আপনার জায়গায় দাঁড়াতে বলছি, যিনি তাঁর দৃঢ় সংকল্প ও অবিচলিত দ্রুত নিষ্ঠার দ্বারা পাকিস্তান তৈরি করতে ও খুঁজে পেতে সক্ষম হয়েছিলেন। যার এই মুহূর্তে চলে যাওয়া সবার জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।
    • অধ্যাপক রাজেন্দ্র প্রসাদ, ৪ নভেম্বর ১৯৪৮-এর ভারতীয় গণপরিষদে। গণপরিষদ বিতর্ক, পুস্তক ২, খণ্ড ৭: ৪ নভেম্বর ১৯৪৮—৮ জানুয়ারি ১৯৪৯: লোকসভা সচিবালয়, ১৯৯৯

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিসংকলন
উইকিসংকলনে এই লেখক রচিত অথবা লেখক সম্পর্কিত রচনা রয়েছে: