বিষয়বস্তুতে চলুন

প্রাণী

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে

প্রাণী বা পশু হল বহুকোষী এবং সুকেন্দ্রিক জীবের একটি বৃহৎ গোষ্ঠী। এরা অ্যানিম্যালিয়া বা মেটাজোয়া রাজ্যের অন্তর্গত। বয়স কিছুটা বাড়তেই প্রায় সব প্রাণীর দেহাবয়ব সুস্থির হয়ে যায়। অবশ্য কিছু প্রাণীকে জীবনের নির্দিষ্ট সময়ে রূপান্তরিত হতেও দেখা যায়।

উক্তি[সম্পাদনা]

আমরা শুধু প্রাণীর মত নই; আমরা প্রাণীই। অন্যান্য প্রজাতির সাথে আমাদের পার্থক্য আকর্ষণীয় হতে পারে, কিন্তু তাদের সাথে তুলনা সবসময় আমাদের নিজেদের সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং হতে হবে। - মেরি মিডগলি
  • এইবারে ডাঙার প্রাণীর কথা আরম্ভ করিব। তোমাদের বাগানে গাছে গাছে যে-সব প্রজাপতি ফুলে ফুলে উড়িয়া বেড়ায়, তাহাদের কথা এখন বলিব না। ইহাদের সকলেই উচ্চ শ্রেণীর প্রাণী; অনেক যন্ত্র ও ইন্দ্রিয় লইয়া ইহাদের সৃষ্টি হইয়াছে; তাহার উপরে আবার ইহারা স্বাভাবিক বুদ্ধি লইয়া জন্মে। যে-সকল ডাঙার প্রাণী শরীরের বিশেষ উন্নতি করিতে পারে নাই এবং যাহাদিগকে আমরা ঘৃণা করি, প্রথমে তাহাদেরি মধ্যে কয়েটির পরিচয় দিব।
  • কেঁচো খুবই ইতর প্রাণী, ইহাদের স্ত্রী-পুরুষ ভেদ নাই, চোখ কান নাক কিছুই নাই। কিন্তু তথাপি ইহারা নিজেদের খাবার নিজেরাই খুঁজিয়া পাতিয়া লয়। সুতরাং আঁটুলি বা উকুনের চেয়ে কেঁচো উৎকৃষ্ট বলিতে হয়। কিন্তু কেঁচোদের জাত-ভাই দুই একটি প্রাণী এমন অকেজো হইয়া পড়িয়াছে যে, তাহাদের কথা শুনিলে তোমরা অবাক্ হইয়া যাইবে।
  • যে হারে প্রাণীদের বংশবৃদ্ধি হয়, তাহাও বড় অদ্ভুত। হাতী ঘন ঘন সন্তান প্রসব করে না। দশ বৎসর অন্তর ইহাদের এক-একটি শাবক হয়। একজন হিসাব করিয়া দেখিয়াছিলেন, পৃথিবীতে যদি কেবল এক জোড়া হাতী থাকিত, তবে তাহাদের বাচ্চায় এবং বাচ্চাদের বাচ্চায় মিলিয়া সাড়ে সাত শত বৎসরে পৃথিবীতে উনিশ লক্ষ হাতী হইয়া দাঁড়াইত।
  • চলিতেছে লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি প্রাণী
    এই শুধু জানি।
    চলিতে চলিতে থামে, পণ্য তার দিয়ে যায় কা’কে,
    পশ্চাতে যে রহে নিতে ক্ষণপরে সেও নাহি থাকে।
  • বরুণের বারি, পবনের বায়ু,
    এই বসুন্ধরা, প্রাণী, পরমায়ু,
    হেরিব সুখেতে পলকে ভ্রমিয়া,
    আধ আধ তনু একত্র মিশিয়া,
    তখন মিটিবে মনের সাধ!—
  • রুদ্ধ প্রাণ ক্ষুদ্র প্রাণী, রুদ্ধ প্রাণীদের সাথে
    কত রে রহিব,
    ছােট ছোট সুখ দুখ, ছােট ছােট আশাগুলি
    পুষিয়া রাখিব।
  • প্রাণীদের সাথে আমাদের সম্পর্ক বিশেষ করে তাদের দিকনির্দেশনা, সুরক্ষা এবং সাহচর্যে তারা আমাদের জন্য আশ্চর্যজনক বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে। সাহায্যের এই উপায়গুলির বাইরে, তারা কল্পনার জন্য সৌন্দর্যময় এবং মনের জন্য বিস্ময় ও অর্থের একটি জগত প্রদান করে। এমনকি এই সবের বাইরেও, তারা একটি মানসিক ঘনিষ্ঠতা প্রদান করে যা অন্য কোন উৎস থেকে আমাদের কাছে আসতে পারে না। প্রাণীরা আমাদের শারীরিক এবং আধ্যাত্মিকভাবে শান্তি প্রদান করতে পারে, যা আমরা নিজেদের জন্য বা একে অপরের জন্য করতে পারি না। এই মূল্যবান উপহারগুলো তারা তাদের উপস্থিতি এবং আমাদের অভ্যন্তরীণ প্রয়োজনের প্রতি তাদের প্রতিক্রিয়াশীলতার মাধ্যমে প্রদান করে।
    • টমাস বেরি, ইভিনিং থটস (সান ফ্রান্সিসকো: সিয়েরা ক্লাব, ২০০৬), পৃ. ৩৯।
  • আমি বিশ্বাস করি যে প্রাণীদেরও অধিকার আছে যা আমাদের নিজস্ব থেকে ভিন্ন হলেও, ঠিক ততটাই অনির্বাণযোগ্য। আমি বিশ্বাস করি যে প্রাণীদের আমাদের দ্বারা তাদের উপর ব্যথা, ভয় বা শারীরিক বঞ্চনা না পাওয়ার অধিকার রয়েছে। কসাইখানার পথে থাকলেও, পশুদের খাদ্য, জল এবং প্রয়োজনে আশ্রয়ের অধিকার রয়েছে। খাদ্য সম্পদ, বিনোদন বা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে কোনোভাবেই নৃশংসতার শিকার না হওয়ার অধিকার তাদের রয়েছে।
    • রজার এ. কারাস, নিউজউইকে (২৬ ডিসেম্বর ১৯৮৮) উই মাস্ট ফাইন্ড অল্টারনেটিভস টু অনিমালস ইন রিসার্চ (We Must Find Alternatives to Animals in Research)।
  • আমাকে একটি গভীর দৃঢ় বিশ্বাস প্রকাশ করতে হবে: যতক্ষণ না আমরা নির্মমতাকে চিনতে সাহস না করছি - সেটির শিকার মানুষ হোক বা পশু হোক - আমরা আশা করতে পারি না যে বিশ্বের জিনিসগুলি আরও ভাল হবে। কোন বিকল্প উপায় থাকতে পারে না। আমরা সেই লোকেদের মধ্যে শান্তি পেতে পারি না যাদের হৃদয় কোন জীবন্ত প্রাণীকে হত্যা করে আনন্দ পায়। হত্যার মতো নির্লজ্জ আনন্দকে মহিমান্বিত বা সহ্য করে এমন প্রতিটি কাজ দ্বারা আমরা মানবতার অগ্রগতি ফিরিয়ে দেই।
    • র‍্যাচেল কারসন, ফন বোর্ডম্যানের কাছে চিঠি, রেচেল কারসন: লিগ্যাসি অ্যান্ড চ্যালেঞ্জ, সংস্করণে উদ্ধৃত।
  • যেমন কুকুর, বিড়াল, ঘোড়া এবং সম্ভবত সমস্ত উচ্চতর প্রাণী, এমনকি পাখি, সকলেই প্রাণবন্ত স্বপ্ন দেখে এবং এটি তাদের গতিবিধি এবং কণ্ঠস্বর দ্বারা প্রকাশ করা হয়, আমাদের অবশ্যই স্বীকার করতে হবে যে তাদের কিছু কল্পনা শক্তি রয়েছে। ... খুব কম লোকই আর বিতর্ক করে যে প্রাণীদের কিছু যুক্তির ক্ষমতা আছে। প্রাণীদের ক্রমাগত বিরতি, ইচ্ছাকৃত এবং সমাধান করতে দেখা যেতে পারে। এটি একটি তাৎপর্যপূর্ণ সত্য যে, কোনো প্রাণীর অভ্যাস যত বেশি একজন প্রকৃতিবিদ দ্বারা অধ্যয়ন করা হয়, তিনি তত বেশি যুক্তি এবং অশিক্ষিত প্রবৃত্তিকে কম দায়ী করেন।
  • প্রাণীদের ভালবাসুন: ঈশ্বর তাদের চিন্তার মূল এবং অসংলগ্ন আনন্দ দিয়েছেন। কাজেই তাদের কষ্ট দিও না, তাদের হয়রানি করো না, তাদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত করো না, ঈশ্বরের অভিপ্রায়ের বিরুদ্ধে যাবেন না। হে মানুষ, পশুদের উপরে নিজ নিঃশ্বাস ত্যাগ করবেন না: তারা পাপমুক্ত, অন্যদিকে তুমি তোমার মহিমায় পৃথিবীকে অপবিত্র করেছ তোমার চেহারার দ্বারা, এবং তুমি তোমার অপবিত্রতার চিহ্ন তোমার পিছনে রেখে যাচ্ছ — হায়, এটা আমাদের প্রায় প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই সত্য!
    • ফিওদর দস্তয়েভস্কি, দ্য ব্রাদার্স কারামাজভ (১৮৭৯-১৮৮০), কনস্ট্যান্স গার্নেটদ্বারা অনুবাদ করা, বই চার, অধ্যায় তিন।
  • আমরা শুধু প্রাণীর মত নই; আমরা প্রাণীই। অন্যান্য প্রজাতির সাথে আমাদের পার্থক্য আকর্ষণীয় হতে পারে, কিন্তু তাদের সাথে তুলনা সবসময় আমাদের নিজেদের সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং হতে হবে।
    • মেরি মিডগলি, বিস্ট অ্যান্ড ম্যান: দ্য রুটস অফ হিউম্যান নেচার (১৯৭৯), ভূমিকা।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]