বিষয়বস্তুতে চলুন

প্রকৃতি

উইকিউক্তি, মুক্ত উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন থেকে
প্রকৃতির প্রকাশের মধ্যে সুরেলা কমনীয়তা হল সবচেয়ে সন্তোষজনক অভিজ্ঞতা যার মধ্যে মানুষ সক্ষম। এই প্রকৃতিতে একটি নিরবতা এবং মানসিক শান্তি রয়েছে যা কেবলমাত্র পরমাত্মার সাথে যোগাযোগের মাধ্যমেই অর্জন করা যায়। - ডঃ হ্যান্স সেলিয়ে

প্রকৃতি বা পরিবেশ, বিস্তৃত অর্থে, প্রাকৃতিক, শারীরিক, বস্তুগত জগত বা মহাবিশ্বকে বোঝায়। "প্রকৃতি" ভৌত জগতের কোনো ঘটনা এবং সাধারণভাবে জীবনকেও উল্লেখ করতে পারে। যদিও মানুষ প্রকৃতির অংশ, তবে মানুষের কার্যকলাপকে প্রায়ই অন্যান্য প্রাকৃতিক ঘটনা থেকে একটি পৃথক বিভাগ হিসাবে গণ্য করা হয়।

উক্তি[সম্পাদনা]

  • এই পৃথিবীর রোদে— এখানে রাত্রির গন্ধে— নক্ষত্রের তরে
    তাই সে এখানকার ক্লান্ত মানবীয় পরিবেশ
    সুস্থ ক’রে নিতে চায় পরিচ্ছন্ন মানুষের মতো,
    সব ভবিতব্যতার অন্ধকারে দেশ
  • এগিয়ে চলার দিন এসেছে,—স্বাধীন হ’ল দেশ,
    এবার সবার গড়তে হবে নতুন পরিবেশ।
    নতুন যুগের ডাক এসেছে—কাটছে আঁধার রাত,
    ছেলে মেয়ে সবাই মিলাও হাতের সাথে হাত
  • প্রকৃতি ভালো-মন্দ, আনন্দ-বেদনা কিছুই জানে না; সে শুধু সহজভাবে কাজ করে। সে একটি সুন্দর মহিলা তৈরি করে এবং তার গালে একটি ক্যান্সার স্থাপন করে দেয়। সে একজন আদর্শবাদী তৈরি করতে পারে এবং তাকে জীবাণু দিয়ে হত্যাও করতে পারে। সে একটি সূক্ষ্ম মন তৈরি করে এবং তারপর একটি বিকৃত শরীর দিয়ে মনটির উপর বোঝা বাড়ায়। এবং সে একটি সূক্ষ্ম শরীর তৈরি করবে, যা হয়তো দৃশ্যত কোন কাজেই লাগবে না। সে সবচেয়ে বিস্ময়কর জীবনকে ধ্বংস করতে পারে যখন এটি সবে শুরু হয়েছে। সে সারা বিশ্বে প্রচারিত যক্ষ্মা জীবাণু ছড়িয়ে দিতে পারে। সে আপাতদৃষ্টিতে কোনও পদ্ধতি, পরিকল্পনা বা উদ্দেশ্য ছাড়াই কাজ করে। সে কোন করুণা বা কল্যাণ জানে না। প্রকৃতির মতো এত নিষ্ঠুর ও পরিত্যক্ত কিছুই নেই।
  • পৃথিবীতে বহু বার প্রাকৃতিক পরিবর্তন ঘটেছে। নূতন পরিবেশের সঙ্গে যে সব মানুষ নিজেকে খাপ খাওয়াতে পেরেছে তারা রক্ষা পেয়েছে, যারা পারে নি তারা লুপ্ত হয়েছে। বিজ্ঞানের বৃদ্ধির ফলে প্রকৃতির উপর মানুষের প্রভাব পড়ছে, তার জন্যও পরিবেশ বদলাচ্ছে। মানুষ এমন দূরদর্শী নয় যে তার সমস্ত কর্মের ভবিষ্যৎ পরিণাম অনুমান করতে পারে।
  • আপনার সীমিত উপায়ে প্রকৃতির গোপনীয়তাগুলিকে অনুপ্রবেশ করার চেষ্টা করুন এবং আপনি দেখতে পাবেন যে, সমস্ত সুস্পষ্ট সংমিশ্রণের পিছনে কিছু সূক্ষ্ম, অস্পষ্ট এবং ব্যাখ্যাতীত থেকে যায়৷ আমরা যা কিছু বুঝতে পারি তার বাইরে এই শক্তির প্রতি শ্রদ্ধাই হল আমার ধর্ম৷ সেই যুক্তিতে আমি আসলে ধার্মিক।
  • একজনের জীবন শেষ হওয়ার ভয় নিয়ে চিন্তা করা মানুষের কাছে বেশ সাধারণ ব্যাপার। এটি প্রজাতির জীবন সংরক্ষণের জন্য প্রকৃতি যে উপায়গুলি ব্যবহার করে তার মধ্যে একটি। যৌক্তিকভাবে উপলব্ধি করা হয়েছে যে ভয়টি সমস্ত অনুভবের মধ্যে সবচেয়ে অযৌক্তিক, কারণ যে মৃত বা এখনও জন্মগ্রহণ করেনি তার কোনও দুর্ঘটনার ঝুঁকি নেই। সংক্ষেপে, ভয় বোকা কিন্তু এটি থেকে রেহাই পাওয়া যাবে না।
  • বর্তমান ভারতে প্রকৃতি সংরক্ষণের সন্দর্ভে যে দু’টি দর্শনের আধিপত্য, সেগুলি এই মূল্যবোধগুলিকে স্পষ্টতই নাকচ করছে। এর মধ্যে প্রথমটি হল ‘সর্বাগ্রে বন্যপ্রাণ’-এর দর্শন; যা বলে— বড় স্তন্যপায়ী এবং পাখি সংরক্ষণ করতে হবে সাধারণ মানুষ তথা অন্য সমস্ত কিছুর কল্যাণের মূল্যের বিনিময়ে। অন্য দর্শনটি বলে— সবরকম মূল্যের বিনিময়েই আমাদের জিডিপি বৃদ্ধির নামান্তর ‘উন্নয়ন’-এর প্রচার করা উচিত। এই সমস্ত মূল্যই অবশ্যম্ভাবীভাবে চেপে বসেছে দুর্বলতর অংশের মানুষের ওপর এবং প্রাকৃতিক পুঁজির ওপর। দু’টি দর্শনই মানুষকে প্রকৃতির বিরুদ্ধে লড়িয়ে দেয়।
  • প্রকৃতির প্রকাশের মধ্যে সুরেলা কমনীয়তা হল সবচেয়ে সন্তোষজনক অভিজ্ঞতা যার মধ্যে মানুষ সক্ষম। এই প্রকৃতিতে একটি নিরবতা এবং মানসিক শান্তি রয়েছে যা কেবলমাত্র পরমাত্মার সাথে যোগাযোগের মাধ্যমেই অর্জন করা যায়। - ডঃ হ্যান্স সেলিয়ে

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]